বর্ধমান পূর্বস্থলী থেকে আমের আঁটি ভিন রাজ্যে

বর্ধমান জেলার পূর্বস্থলী থেকে আমের আঁটি পাড়ি দিচ্ছে ভিন রাজ্যে:


০১/০৭/২০২০ প্রতিনিধিঃ রাজকুমার ঘোষ ও আমজাদ আলী

শুধু আম নয় এখন বাংলা থেকে ভিম রাজ্যে পাড়ি দিচ্ছে আমের আঁটি


 পূর্ব বর্ধমান:- সুস্বাদু আমের পর এবার পূর্বস্থলীর আমের আঁটি ছুটছে বিভিন্ন জেলা থেকে ভিন রাজ্যে। গত ২ বছর ধরে পূর্বস্থলী রেলস্টেশনের ৪ নং প্লাটফর্মের পাশে তৈরি হয় আমের আঁটির পাইকারি মার্কেট। দুপুর হলেই ছোট ছোট ট্রাক ভিড়ছে বস্তাবন্দি আঁটি সংগ্রহে।। দৈনিক দেড় থেকে দু লাখ পর্যন্ত আঁটি রপ্তানি হয়। মূলত বিহারের কাটিহার, ভাগলপুর এর চাহিদা বেশি। পাশাপাশি হুগলি, নদীয়া ও উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলায় ছুটছে পূর্বস্থলীর আমের আঁটি। নার্সারি মালিকরা সরাসরি আসছেন আমের আঁটি সংগ্রহে। এদিকে আঁটির চাহিদা বেড়ে যাওয়ার ফলে এর দামও বাড়তে শুরু করেছে। এছাড়া লকডাউনে বহু মানুষ কর্মহীন হয়েছিল। তারাও ভোরের আলো ফুটতেই আমের আঁটি সংগ্রহে বেরোচ্ছেন। দিনের শেষে ওইগুলো বিক্রী করে মিলছে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা। তবে, এই ব্যবসা দু মাসের জন্য হয়। লকডাউনের মধ্যে এবার এই কাজে হাসি ফুটেছে হাজার খানেক কর্মহীনদের। এ বছর আঁটি সংগ্রহের হারও ৪ গুন বেড়েছে। আড়ৎদাররা ১ টিন ভর্তি আমের আঁটি কেনেন ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা দরে, বলে জানাগিয়েছে। স্থানীয় আড়ৎদার সুনীল মণ্ডল, রাজিন্দর রাজবংশী বলেন, আমের আঁটির এত চাহিদা আগে ছিল না। বিভিন্ন জেলার নার্সারি ঘুরে আমরা এর চাহিদার কথা জানতে পারি। ওই মালিকরাই বলেছিল, সংগ্রহ করা থাকলে আমারাই পূর্বস্থলী গিয়ে আঁটি সংগ্রহ করবো। অনেকে আগ্রীম টাকাও দিতে চান। পূর্বস্থলীর মতো এত পরিমান আমের আঁটি অন্য কোথাও পাওয়া যায়না। এই আঁটি নিয়ে ওনারা আমের কলম তৈরী করেন। আমাদের সব খরচ খরচা মিটিয়ে দিনে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা আয় হয়।  

Mango seeds seedlings export bardhaman west bengal


ভোরের আলো ফুটতেই শুরু হচ্ছে আমের আটি সংগ্রহ।বিক্রী করে মিলছে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা


 বৃহত্তর পূর্বস্থলী জুড়ে প্রায় হাজার খানেক আমবাগান আছে। কোনটিতে ৫০০টা পর্যন্ত আমগাছ আছে। ঝড়ে পড়া বা পচা, দাগি আম বাগানের মধ্যেই পড়ে থাকে। কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে আঁটির স্তর জমে যায়। আঁটি সংগ্রহে বাগান মালিকরা বাধা দেয় না। উপরুন্তু উৎসাহ দেন। পলাসপুলি, বেলগাছি, পূর্বস্থলীর, জাহান্নগরের বেশ কিছু বাগান মালিকরা বলেন, ভোরের আলো ফুটলেই নাবালক, মহিলারা আঁটি কুঁড়োতে আসে। আমরা নিষেধ করিনা। ওই আঁটি তুলে নিলে বাগান পরিস্কার থাকে। পূর্বস্থলীর গোপাল মুখোপাধ্যায় কলোনির বাসিন্দারাই প্রথম আমের আঁটি সংগ্রহের পেশায় যুক্ত হয়। প্রায় ২০০টি নার্সারি আছে পূর্বস্থলীতে। তাদের অবশ্য আমের আঁটি সাপ্লাই দেবার আলাদা লোক আছে।


 পূর্বস্থলী ২ ব্লকের সহ কৃষি আধিকারিক জনার্দন ভট্টাচার্য্য বলেন, নার্সারি মালিকরা ওই আঁটি সংগ্রহ করে প্রথমে গাছ তৈরি করেন। পরে তার মাথা কেটে গ্রাফটিং করা হয়। বিভিন্ন প্রজাতির আমের কাটিং জোড়া হয় ওই গাছে। ওটাই হয় কলমের আম। একটু বড় হলে প্রতিটি গাছ ৫০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রী হবে।



বিস্তারিত জানার জন্য খবর দেখুন -

সঙ্গে থাকুন - এক কদম এগিয়ে থাকুন
Reactions

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ